ঢাকা, বাংলাদেশ | বুধবার, ২৪ জুলাই, ২০২৪ খ্রিষ্টাব্দ

শিরোনামঃ

   চট্টগ্রামে কোটা সংস্কার আন্দোলনে গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত দুই তরুণ    কোটা সংস্কার আন্দোলন ঘিরে সংঘর্ষে এখন পর্যন্ত ১১ জনের মৃত্যুর খবর    আন্দোলনকারীদের পূর্ণ সমর্থন জানিয়েছে জামায়াত    নরসিংদীতে কোটা আন্দোলনে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে স্কুলশিক্ষার্থী নিহত    নাটোরে মিছিলের প্রস্তুতির সময় ১৮ স্কুলছাত্রকে পুলিশে দিলেন প্রধান শিক্ষক    জুলাইয়ের ২১, ২৩ ও ২৫ তারিখের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত    ছাত্রলীগ-কোটা আন্দোলনকারিদের সংঘর্ষ, ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক অবরোধ    কোটা আন্দোলনে রেসিডেনসিয়াল কলেজের শিক্ষার্থী ফারহান নিহত    শ্রীমঙ্গলে চাঞ্চল্যকর আইনজীবী হত্যাকাণ্ডে জড়িত ২জন গ্রেপ্তার    চট্টগ্রাম রেগুলেশন বাতিলের ষড়যন্ত্র বন্ধের দাবিতে মিছিল    চুয়াডাঙ্গায় শিক্ষার্থীদের সড়ক অবরোধ; ছাত্রলীগের হামলা    আজ বন্ধ থাক‌বে ভারতীয় ভিসা সেন্টার    উত্তরায় গুলিতে নর্দান বিশ্ববিদ্যালয়ের ২ শিক্ষার্থী নিহত    টাঙ্গাইলে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া    মিরপুর ১০ নম্বরে সংঘর্ষ চলাকালীন পুলিশ বক্সে আগুন

নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার রাধানগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান খোরশেদ আলম তপনের বিরুদ্ধে বাড়িঘর ভাঙচুর, হয়রানি মূলক মিথ্যা মামলা, জন্ম নিবন্ধন, চারিত্রিক সনদ, ট্রেড লাইসেন্স, ওয়ারিশ সার্টিফিকেটে অবৈধ টাকা আদায় সহ বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে কয়েকটি ব্যানারে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে স্থানীয়রা। এসময় জুতা ও ঝাড়– নিয়ে অনেককে বিক্ষোভ মিছিলে অংশ নিতে দেখা গেছে। মিছিলে চেয়ারম্যান তপন এর বিচার দাবীতে স্লোগান তুলেন উপস্থিত বিক্ষুব্দ জনতা। মানববন্ধনে দেখা গেছে রাধানগরের “উবায়দুল হকের মৃত্যুর প্ররোচনাকারী তপন চেয়ারম্যান ও তার ক্যাডার বাহিনীর দ্রুত গ্রেফতার ও শাস্তির আওতায় আনার জন্য ব্যানার হাতে দাড়ায় উবায়দুল হকের স্বজণ ও স্থানীয়রা।
বৃহস্পতিবার (০৬ অক্টোবর) দুপুরে উপজেলার রাধানগর ইউনিয়ন কমপ্লেক্সের সামনে থেকে গকুলনগর ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক পর্যন্ত এ মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল সমাবেশ করে রাধানগর ইউনিয়নের ভুক্তভোগী ও ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের লোকজন।

মানববন্ধনে নিহত উবায়দুল হকের ভাই মো: মোমেন মিয়া জানান, রাধানগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান খোরশেদ আলম তপন এর নেতৃত্বে তার পালিত সন্ত্রাসী বাহিনীরা আমাদের বাড়িতে এসে উবায়দুলকে মারধর করে। পরদিন উবায়দুলকে তপনের সন্ত্রাস বাহিনীরা স্থানীয় একটি বাজারে লোকজনের সামনে বেঁধে বেধরক মারধর করে বাজার থেকে বের করে দেয়। এরপর থেকেই উবায়দুলকে তপন বাহিনীরা বিভিন্ন ভাবে নির্যাতন করতে থাকে। এসব সহ্য করতে না পেরে উবায়দুল এক পর্যায় আত্বহত্যার পথ বেছে নেয়। এ ঘটনায় থানা পুলিশ অবগত রয়েছে বলে জানান তিনি।

মানববন্ধনে আসাদুজ্জামান রিপন বলেন, চেয়ারম্যান তপন জন্ম নিবন্ধন বাবদ অতিরিক্ত ফি আদায় করছে। সে তিনশো থেকে পাঁচশো টাকা নিচ্ছে এবং অনেকের কাছ থেকে টাকা নিয়েও নিবন্ধন দিচ্ছে না। ওয়ারিশ সার্টিফিকেট ও ট্রেড লাইসেন্সের বেলায়ও সে এই কাজ করেছে। তিনি আরোও বলেন, তপন চেয়ারম্যান তাকে প্রধান আসামী করেও একটি মিথ্যা অভিযোগে মামলা দিয়েছে। শুধু এইটুকুতেই চেয়ারম্যান ক্ষ্যান্ত হয়নি তিনি ইউনিয়নে একটি সন্ত্রাসী কার্যকলাপের সৃষ্টি করেছে। তার বিরুদ্ধে যেই প্রতিবাদ করতে যায় তাকেই মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করাচ্ছে। পরে স্থানীয়রা মানববন্ধনের মাধ্যমে সরকার প্রধানের কাছে তিনি ইউপি চেয়ারম্যান তপন এর বিচার দাবী করেন।
রাধানগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান খোরশেদ আলম তপন মানববন্ধনে উল্লেখিত বিষয়গুলোর ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি তা অস্বীকার করে বলেন, রাজনৈতিক প্রতিহিংশার কারনে সমাজে একটি মহল এসব মিথ্যাচার করে বেরাচ্ছে। যা সম্পূর্ণ মিথ্যা বানোয়াট এবং ভিত্তিহীন।


প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও
কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।